logo

মনোহরদীর রামপুরে বাসন্তী পূজা পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য আমাদের অটুট রাখতে হবে

বাসন্তী পূজা বাঙালি জাতির একটি ঐতিহ্যবাহী উৎসব। এই উৎসবকে স¤প্রীতির বন্ধন হিসেবে সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে হবে। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য আমাদের সকলের আন্তরিকতার মাধ্যমে অটুট রাখতে হবে। এ উৎসব শুধু মনোহরদীর রামপুরের হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য নয় বরং জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে আমাদের জাতীয় ঐক্য চেতনায় এটি একটি মহামিলনোৎসব। অসাম্প্রদায়িকতার চেতনাকে বুকে লালন করে আমাদের দেশকে সামনের দিকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। নরসিংদী তথা বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এখানে আবহমানকাল থেকে একসঙ্গে হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান এবং আদিবাসী ও উপজাতি সম্প্রদায়ের লোকেরা মিলেমিশে বসবাস করে আসছে। বিশ্বে এ এক অনন্য ইতিহাস। যে দেশে, যে ভূখণ্ডে একসঙ্গে নানা জাতি, নানা বর্ণের লোক এবং নানা ধর্ম-সংস্কৃতির লোকের বসবাস সেটাই আমাদের আসল পরিচয়। তাই তো প্রাচীনকাল থেকে আমরা পারস্পরিক সম্প্রীতির মেলবন্ধনে আবদ্ধ রয়েছি। গত শুক্রবার নরসিংদীর জেলা প্রশাসক আবু হেনা মোরশেদ জামান মনোহরদীর রামপুর কালীবাড়ি শশ্মান ঘাট প্রাঙ্গণে আয়োজিত শ্রী শ্রী বাসন্তী পূজা পরিদর্শনে গিয়ে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। গত ১২ এপ্রিল থেকে রামপুর কালীবাড়ি শশ্মান ঘাট প্রাঙ্গণে মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে শ্রী শ্রী বাসন্তী পূজা। এছাড়াও কালী পূজা, শীতলা পূজা, ব্রহ্মপুত্র নদে মহাষ্টমী স্নান ছিল উল্লেখযোগ্য। গতকাল শনিবার মহা বিজয়া দশমীর মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে শ্রী শ্রী বাসন্তী দুর্গা উৎসব। ৫দিন ব্যাপি উৎসবকে ঘিরে বিভিন্ন পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেছিল দোকানিরা। গত শনিবার সন্ধ্যায় নরসিংদীর জেলা প্রশাসক আবু হেনা মোরশেদ জামান বাসন্তী পূজাস্থল পরিদর্শনে আসেন। এ সময় নরসিংদী জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভানেত্রী ডা. ফাতিমা নুসরাত জামান সেতু, মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ শহিদ উল্লাহ, মনোহরদী উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মুহম্মদ শামীম কিবরিয়া, নরসিংদী জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) মো. কাবিরুল ইসলাম খান উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও রামপুর কালীবাড়ি শশ্মান ঘাট পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ডা: তপন কুমার বণিক, জহর লাল বণিক, নারায়ণ চন্দ্র দাস, সন্তোষ কুমার দাস, ডা: সন্তোষ কুমার দাস সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। পরিদর্শন অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য ও সার্বিক পরিচালনায় ছিলেন দৈনিক গ্রামীণ দর্পণের প্রশাসনিক ব্যবস্থাপক শান্ত বণিক। অনুষ্ঠানে মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ শহিদ উল্লাহ, মনোহরদী উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মুহম্মদ শামীম কিবরিয়া এলাকাবাসীকে নববর্ষের শুভেচ্ছা সহ হিন্দুধর্মীয় বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন। জেলা প্রশাসক আবু হেনা মোরশেদ জামান আরো বলেন, পুরাণ মতে, রাজা সুরথ প্রথম দেবী-দুর্গার আরাধনা শুরু করেন। বসন্তে তিনি পূজার আয়োজন করায় দেবীর এ পূজাকে বাসন্তী পূজা বলা হয়। রাবণের হাত থেকে সীতাকে উদ্ধার করতে লংকা যাত্রার আগে শ্রী রামচন্দ্র দেবীর পূজার আয়োজন করেছিলেন শরৎকালের অমাবস্যা তিথিতে যা শারদীয় দুর্গোৎসব নামে পরিচিত। আর দেবীর শরৎকালের পূজাকে এ জন্যই হিন্দুমতে অকাল বোধনও বলা হয়ে থাকে। তিনি বলেন, নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলার শেষ প্রান্তে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত রামপুর গ্রামের বসন্তের শেষ ক্ষণে দেবী বাসন্তীকে বরণ করার শুভ প্রয়াস সত্যিই প্রশংসনীয়। তিনি জেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে মন্দির সংস্কারের জন্য ৩টন চাল বরাদ্ধ করেন। এছাড়াও মনোহরদী উপজেলা প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।

Comments are closed.







প্রধান সম্পাদক : ফজলুল হক জোয়ারদার আলমগীর, সহ-সম্পাদক : দেলোয়ার হোসেন শরীফ।
বার্তা সম্পাদক - মাসুম পাঠান, প্রধান কার্যালয়: ১৩/এ মনেশ্বর রোড, হাজারিবাগ, ঢাকা- বাংলাদেশ।
জোনাল অফিস: বাংলাদেশ কম্পিউটার এন্ড টেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট, কটিয়াদী বাজার (অগ্রনী ব্যাংক নিচতলা), কিশোরগঞ্জ।
ফোন : ০১৭১১-১৮৯৭৬১, ০১৭১১-৩২৪৬৬০, ০১৭৩২-১৬৩১৫৭।
ই-মেইল: news@ghatanaprobaha.com, ওয়েবঃ- www.ghatanaprobaha.com
ডিজাইন: একুশে