logo

ভোটের বলি শুভ, দায় কার?

ছেলেটির নাম শুভ কাজী। বয়স ১০ বছর। ভদ্রলোকের ছেলেমেয়েরা যখন সেজেগুঁজে স্কুলে রওনা করছে, শুভ তখন লাশ হযে শুয়ে আছে মধুচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে। বন্দুকের গুলি ঝাঁঝরা করে দিয়েছে তার শিশু দেহখানা। গণতন্ত্রের ভোট কেড়ে নিয়েছে তার প্রাণ। যে সময় তার স্কুলের বারান্দায় দৌড়াদৌড়ি করে বেড়ানোর কথা, ক্লাস রুমে সহপাঠীদের সাথে গলায় গলা মিলিয়ে রগ টান টান করে উচ্চারণ করার কথা-“স্বাধীনতা তুমি খোকার গায়ের রঙিন কোর্তা, খুকীর অমন তুলতুলে গালে রৌদ্রের খেলা”! ঠিক সেরকম একটি সময়ে, স্বাধীনতার মাসের শেষ দিন, দ্বিতীয় দফা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের বলি হয়েছে শুভসহ আরো সাতজন। দুই মেয়াদের নির্বাচনে এ নিয়ে মোট ২০ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটল।

ব্যাপক সহিংসতার মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে হামলা, সংঘর্ষ, বোমা বিস্ফোরণ, ব্যালট ছিনতাই, জাল ভোট ও গোলাগুলি হয়েছে। এই সংহিসতায় ঝড়ে গেছে তরতাজা আটটি প্রাণ। ভোটের অজুহাতে এত যে প্রাণের সংহার, এর দায় কে নেবে?

বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছে আজ ৪৫ বছর। স্বাধীনতা ছেচল্লিশে পা দিল এই গেল সপ্তায়। এর মধ্যে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন যতটা হয়েছে, যতটা মজবুত হয়েছে এই জাতিসত্ত্বার ভিত্তি, তাকে কোনো অংশেই খুব কম বলা যাবে না। বরং অনেক ক্ষেত্রেই বাংলাদেশ ইর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছে। কিন্তু গণতন্ত্রের কী দশা? আর সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন নির্বাচন কার্যক্রমের দিকে দৃষ্টি দিলেই স্পষ্ট হয়ে ওঠে। জাতীয় নির্বাচন তো দূরের কথা, সাধারণ একটা ইউপি নির্বাচনও এখানে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার নিশ্চয়তা নির্বাচন কমিশন দিতে পারে না। ভোটের নামে যে জালিয়াতি চোখে পড়ে, তা এ দেশের গণতন্ত্রকে কলঙ্কিত করে। শুধু কলঙ্কিতই করে না, বরং স্বাধীনতার সব অর্জন যেন মিশিয়ে দেয় ধূলোয়। স্বাধীনতার মাসে ছোট্ট শুভ ভোট কেন্দ্রে গুলি খেয়ে মরে পড়ে থাকে। আমারা এই স্বাধীনতা চেয়েছিলাম?

ভোট তো যেকোন ভাবেই হোক সম্পন্ন হয়ে গেছে। কেউ জিতেছে, কেউ হেরেছে। বরাবরের মতো অথর্ব নির্বাচন কমিশন নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে বলে দাবি করেছেন। সে দাবি তিনি করতেই পারেন। দাবি করলে তাকে তো আর আটকানো যায় না। কিন্তু দুই দফায় এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এই যে প্রাণহানি এর দায় কে নেবে?

Comments are closed.







প্রধান সম্পাদক : ফজলুল হক জোয়ারদার আলমগীর, সহ-সম্পাদক : দেলোয়ার হোসেন শরীফ।
বার্তা সম্পাদক - মাসুম পাঠান, প্রধান কার্যালয়: ১৩/এ মনেশ্বর রোড, হাজারিবাগ, ঢাকা- বাংলাদেশ।
জোনাল অফিস: বাংলাদেশ কম্পিউটার এন্ড টেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট, কটিয়াদী বাজার (অগ্রনী ব্যাংক নিচতলা), কিশোরগঞ্জ।
ফোন : ০১৭১১-১৮৯৭৬১, ০১৭১১-৩২৪৬৬০, ০১৭৩২-১৬৩১৫৭।
ই-মেইল: news@ghatanaprobaha.com, ওয়েবঃ- www.ghatanaprobaha.com
ডিজাইন: একুশে