logo

করিমগঞ্জে করোনা আক্রান্তে মারা যাওয়া সেলিমের পরিবারের তিন সদস্যের করোনা শনাক্ত

ঘটনা প্রবাহ ডেস্কঃ

কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার জঙ্গলবাড়ি মুসলিমপাড়া গ্রামের নিজ বাড়িতে ঢাকার ব্যবসায়ী সেলিম মিয়া (৪৬) গত ৬ এপ্রিল ভোররাতে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে মারা যান। মারা যাওয়ার পর নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে সেলিম মিয়ার কোভিড-১৯ পজেটিভ ধরা পড়ে।

কিশোরগঞ্জ জেলায় এটি ছিল প্রথম করোনা শনাক্ত। এবার নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন মারা যাওয়া সেলিম মিয়ার পরিবারের তিন সদস্য। তার মা, ভাই ও স্ত্রী’র নমুনায় কোভিড-১৯ পজেটিভ ধরা পড়েছে।

শনিবার (১১ এপ্রিল) দুপুরে কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান মারা যাওয়া সেলিম মিয়ার পরিবারের তিন সদস্যের করোনা শনাক্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, এ নিয়ে কিশোরগঞ্জ জেলায় মোট ১০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে করিমগঞ্জে মারা যাওয়া সেলিম মিয়া এবং তার পরিবারের তিন সদস্য রয়েছেন।

এছাড়া কিশোরগঞ্জ শহরের আলোরমেলা এলাকার একজন চিকিৎসক ও বত্রিশ এলাকার একজন নারী স্বাস্থ্যকর্মী, ভৈরব থানার একজন পুলিশ কর্মকর্তা (এসআই), ইটনা উপজেলার জয়সিদ্ধি ইউনিয়নের একজন নারী ও ইটনা সদর ইউনিয়নের সাবেক এক ইউপি সদস্য এবং পাকুন্দিয়া উপজেলার হোসেন্দী চরপাড়া এলাকার এক ব্যক্তি।

করিমগঞ্জ উপজেলার জঙ্গলবাড়ি মুসলিমপাড়ার সেলিম মিয়া রাজধানী ঢাকায় একটি মুদি দোকান চালাতেন। সোমবার (৬ এপ্রিল) ভোর রাতে মারা যাওয়ার সপ্তাহখানেক আগে তিনি গ্রামের বাড়িতে ফিরেন।

তিনি জ্বর এবং সর্দি-কাশিতে ভুগছিলেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার সন্দেহে মারা যাওয়া ওই ব্যক্তির শরীর থেকে ওইদিনই (সোমবার, ৬ এপ্রিল) পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল।

মারা যাওয়া ওই ব্যক্তির করোনা পজিটিভ আসায় করিমগঞ্জ উপজেলার কাদিরজঙ্গল ও জাফরাবাদ এই দু’টি ইউনিয়নকে লকডাউন করা হয়েছে।

 

Comments are closed.







প্রধান সম্পাদক : ফজলুল হক জোয়ারদার আলমগীর, সহ-সম্পাদক : দেলোয়ার হোসেন শরীফ।
বার্তা সম্পাদক - মাসুম পাঠান, প্রধান কার্যালয়: ১৩/এ মনেশ্বর রোড, হাজারিবাগ, ঢাকা- বাংলাদেশ।
জোনাল অফিস: বাংলাদেশ কম্পিউটার এন্ড টেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট, কটিয়াদী বাজার (অগ্রনী ব্যাংক নিচতলা), কিশোরগঞ্জ।
ফোন : ০১৭১১-১৮৯৭৬১, ০১৭১১-৩২৪৬৬০, ০১৭৩২-১৬৩১৫৭।
ই-মেইল: news@ghatanaprobaha.com, ওয়েবঃ- www.ghatanaprobaha.com
ডিজাইন: একুশে